Tuesday, December 6, 2022

করিমগঞ্জে পেনশন সেবা কেন্দ্রের উদ্বোধন করলেন মন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ্য

জনসংযোগ, করিমগঞ্জ, ২৯জুলাই : সমগ্র রাজ্যের ২৭ টি পেনশন সেবা কেন্দ্রের সাথে করিমগঞ্জেও শুক্রবার, পেনশন সেবা কেন্দ্রের উদ্বোধন করলেন রাজ্যের পরিবহন, মীন ও আবগারি বিভাগের তথা করিমগঞ্জের অভিভাবক মন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ্য।

শুক্রবার বিকেলে করিমগঞ্জ শহরের শম্ভু সাগর পার্কের পাশে রাজচন্দ্র দাস এম ভি স্কুলে এই সেবা কেন্দ্রের আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন মন্ত্রী। তারপর এই সেবা কেন্দ্রের উদ্বোধন উপলক্ষে রবীন্দ্র সদন মহিলা মহাবিদ্যালয়ে জেলাশাসক মৃদুল যাদবের পৌরহিত্যে এক সভার আয়োজন করা হয়। এতে স্বাগত ভাষণ দিয়ে জেলাশাসক জানান যে পেনশন ব্যবস্থাকে সহজতর করতে চালু হওয়া এই পেনশন সেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ‘কৃতজ্ঞতা’ পোর্টেলে ই-পেনশন সেবা কেন্দ্রে পেনশন পদ্ধতিকে সহজতর করা হয়েছে।

এতে শিক্ষা বিভাগ সহ সব বিভাগীয় কর্মী ও আধিকারিকরা অবসর গ্রহণের এক বছর আগে পেনশনের জন্য আবেদন করতে পারবেন এবং অনলাইন যোগে সার্ভিস বুক স্ক্যান করে পাঠানো হবে। এতে পঞ্জীয়নভুক্ত ডিভাইস ব্যবহার করে জীবন প্রমাণের মাধ্যমে ডিজিটাল লাইফ সার্টিফিকেট আপলোড করতে অবসরপ্রাপ্ত সবাই সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন।

পাশাপাশি অনলাইনের মাধ্যমে এতে প্র-পত্র দাখিলের সুবিধা থাকছে এবং এতে পিপিও বা পেনশন পেমেন্ট অর্ডার নম্বর প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে। এই পুরো প্রক্রিয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কার্যালয় থেকে তদারকি করা হবে বলে তিনি জানান।

অনুষ্ঠানে মুখ্য অতিথির ভাষনে মন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ বলেন যে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগে সমগ্র রাজ্যে অবসরে যাওয়া কর্মী ও আধিকারিকদের তাদের সবথেকে আকাঙ্খিত কর্মজীবনে বিরতির পর তাদেরকে সম্মান স্বরূপ সুষ্ঠু ও সহজতর পদ্ধতিতে তাদের ন্যূনতম প্রাপ্য পেনশন পাইয়ে দিতে এই ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত তিনি উল্লেখ করে বলেন যে পুরনো পেনশন ব্যবস্থায় অবসরপ্রাপ্ত কর্মী ও আধিকারিকদের তাদের পেনশন পেতে অনেক অসুবিধা সম্মুখীন হতে হয়েছে এবং সময়ও অনেক লেগেছে। তাই এই ব্যবস্থাকে অনলাইন যোগে একত্রীকরণ করে সহজতর করা হয়েছে এবং জীবনের অমূল্য সময় ব্যয় করার পর অবসরপ্রাপ্তদের তাদের প্রাপ্য সম্মান প্রদানের জন্য কর্ম বিরতির দিন থেকেই পেনশন পাওয়ার এই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

এতে অবসর গ্রহণের এক বছর আগে থেকে কর্মী ও আধিকারিকরা পেনশন এর জন্য আবেদন করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই সেবা কেন্দ্রের কাজ সম্পাদন করছে রাজ্যের বৈদ্যুতিন উন্নয়ন বিভাগ অ্যামট্রন এবং করিমগঞ্জে এর সঠিক পরিচালনার দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে স্কুল সমূহের পরিদর্শক কার্যালয়কে। তাই অনুষ্ঠানে মন্ত্রী দীর্ঘ কর্ম কর্মজীবনের পর অবসর গ্রহণ করা কর্মী ও আধিকারিকদের কর্মজীবনের অভিজ্ঞতায় সম্পন্ন থাকায় তাদেরকে অভিভাবক হিসেবে আখ্যায়িত করেন এবং সংশ্লিষ্ট বিভাগকে তাদের প্রতি যত্নশীল হয়ে সেবা প্রদান করতে নির্দেশ দেন।

এই কেন্দ্রের সর্বোপরি দায়িত্বে থাকছেন করিমগঞ্জের এডিসি জেমস আইন্ড। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য পেশ করেন রাজ্য পরিবহন নিগমের অধ্যক্ষ মিশন রঞ্জন দাস তিনি পুরনো পেনশন ব্যবস্থায় বিভিন্ন সমস্যা সম্পর্কে তার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন এবং এই কেন্দ্র স্থাপনে রাজ্য সরকারের প্রয়াসকে ভুয়শী প্রশংসা করেন পাশাপাশি এই কেন্দ্র সুষ্ঠু ভাবে পরিচালনার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে করিমগঞ্জ জেলা বিজেপির সভাপতি সুব্রত ভট্টাচার্য, করিমগঞ্জের পৌরপতি রবীন্দ্র দেব, রবীন্দ্রসদন মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ অশোক দাস প্রমূখ এই কেন্দ্র স্থাপনের জন্য রাজ্য সরকারের প্রশংসা করেন এবং এতে কর্মজীবনের শেষ প্রান্তে আসা অবসরপ্রাপ্তদের কষ্ট অনেকাংশে লাঘব হবে বলে তাদের মত প্রকাশ করেন।

অনুষ্ঠানে দীর্ঘ ১৫ বছর থেকে পেনশন প্রাপক শিক্ষক সুনীত দত্ত পুরনো পেনশন ব্যবস্থার বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেন এবং এই অনলাইন ব্যবস্থায় চালু হওয়া পেনশন সেবা কেন্দ্রের জন্য তিনি তার অন্তরের অন্তস্থল থেকে রাজ্য সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং এই কেন্দ্র সুষ্ঠুভাবে সকলের সেবা প্রদান করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। অনুষ্ঠানে স্কুল সমূহের পরিদর্শক অনুপ কুমার দাস, স্কুল সমূহের উপ পরিদর্শক নুরুল হক মাঝারভূইয়া সহ বিভিন্ন বিদ্যালয় থেকে আগত শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং সরকারি কার্যালয়ের কর্মীরা অংশগ্রহণ করেন।

Latest Updates

RELATED UPDATES