Monday, October 3, 2022

বিভিন্ন সংগঠনের সাথে শহরের মডেল রাও আজ নেমে পড়েছে বন্যাক্রান্তদের সাহায্যে

শুভ দাস : সম্প্রতি বন্যার জলে নাজেহাল অবস্থা শিলচর শহরের, জল কিছুটা কমলেও আবর্জনার স্তুপ জমেছে অলিতে গলিতে সেই শিলচরে বরাক নদীর জল ঢুকতে শুরু করেছে হুড়মুড়িয়ে। শহরের একতলা বাড়ির ছাদ ছুঁয়েছে জল। জল বাড়তে দেখে রাতভর জেগেই কাটিয়েছে শিলচর।রাস্তায় গলাজল । তবে শেষ ২৪ ঘণ্টায় পরিস্থিতি কতটা খারাপ হয়েছে, তা জানিয়েছেন শহরের বাসিন্দারা।

শেষে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর একটি দল উদ্ধার কার্যে ঝাপিয়ে পড়েছে সুজন দেব রায়, সুবীর ধর, দিলু দাস, জয়দীপ চক্রবর্তী, লায়ন্স, লিও রাইসিং ইউথ, হাইলাকান্দির হোপ্স ফর জেম সোসাইটির, বরাক ভ্যালি ওয়েলফার ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি, রক্ষক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারাও প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে গেছেন।

সাথে বেরিয়েছে ক্লাব ইচ্ছেডানার মডেলরাও, বন্যাক্রান্তদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন প্রেম শুক্লা, অনির্বান, অর্জুন কৌশিক, রিশভ, মৃণাঙ্ক, অনুপমা শুধু মডেলিং নয় ব্যক্তিগত জীবনে তারা সবাই প্রতিষ্ঠিত, তারাও আজ কাদা জলে নেমে লোকের সাহায্যেও এগিয়ে এসছে ,মডেল নয় সমাজের রোল মডেলের কাজ করছে তারা,
এছাড়াও আরও বিভিন্ন সংগঠনের কর্মীরা এগিয়ে এসছে এই সাহায্যে এটাই প্রমাণিত হল মানুষ মানুষের জন্য।

চিত্র পরিচালক শর্মিষ্ঠা দেবের সাথে ফোনালাপ করে জানা যায় যে তিনি কাজের সুত্রে কলকাতায় আছেন, আসার জন্য তৈরী হলেও হঠাৎ করে প্রচন্ড অসুস্থ হয়ে যান তিনি বলেন আমার অনুপস্থিতিতেও আমার ছেলেরা শহর শিলচরের জন্য যা-ই করেছে তা আমি ভুলতে পারবো না কখনো।

রাজ্যে ইতিমধ্যে ১২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। কাছাড় জেলার শিলচর শহর টানা সাতদিন জলের তলায়। শহরে খাদ্য ও পানীয় জলের তীব্র আকাল দেখা দিয়েছে। শিলচরে প্রায় তিন লক্ষের বেশি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। উদ্ধারকর্মীরা জলবন্দি মানুষের কাছে ত্রাণ পাঠানোর চেষ্টা করছেন।বর্তমানে শিলচরে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর ২০৭ জন উদ্ধারকর্মী রয়েছেন। পাশাপাশি ১২০ জন সেনার একটি দল শিলচরে উদ্ধারের সাহায্য করছে। ডিমাপুর থেকে নয়টি নৌকা শিলচরের কাছে রাখা হয়েছে। প্রয়োজনে উদ্ধারকার্যে তা ব্যবহার করা হবে। শিলচরে উদ্ধার কাজে দুটো ড্রোন ব্যবহার করা হচ্ছে। সেনাবাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, খারাপ আবহাওয়ার জন্য মাঝে উদ্ধারকাজ ব্যহত হয়। নতুন করে উদ্ধারকাজ শুরু হয়েছে। সেনাবাহিনীর স্পিয়ার কর্পাসের অধীনে শ্রীকোনা ব্যাটেলিয়ন ১৪০ জনকে উদ্ধার করেছে।আকাশপথে শিলচরের বন্যাপরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। তিনি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানান, শিলচরের জলবন্দি মানুষকে উদ্ধার করতে অতিরিক্ত উদ্ধারকর্মী পাঠানো হবে। রাজ্য সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, কাছাড় ও বারাক উপত্যকা বন্যায় সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। রাজ্য সরকার ৮৫.২ মেট্রিক টন ত্রাণ সামগ্রী ইতিমধ্যে গুয়াহাটি থেকে শিলচরে পাঠিয়েছে। বরাক সেরেই উঠবে, আবার ফিরবো আমরা নতুন রেশ নিয়ে, এই প্রত্যাশা।

Latest Updates

RELATED UPDATES