Wednesday, September 28, 2022

শনবিলে ত্রাণ দিতে গিয়ে দুর্ব্যবহার ও নিগ্রহের শিকার রামকৃষ্ণ মিশনের মহারাজ, শনবিলে গ্রেফতার ও আটক ২

রামকৃষ্ণনগর : বন্যার্তদের জন্য ত্রাণ নিয়ে শনবিল গিয়েছিলেন করিমগঞ্জ রামকৃষ্ণ মিশনের রামভদ্রানন্দজি মহারাজ৷ সঙ্গে ছিলেন মিশনের স্বেচ্ছাসেবকরাও৷ কিন্তু সুভাষ হাইস্কুলে ত্রাণ দিতে গিয়ে তাঁদের চরম দুর্ব্যবহারের মুখে পড়তে হয়৷ গৌরীশ চক্রবর্তী বাদল দাস — মূলত এই ২ ব্যক্তিই অভব্য আচরণ করেন মহারাজের সঙ্গে৷ দু’জনকেই আটক করেছে পুলিশ৷ এদিকে ঘটনার নিন্দায় সরব হয়েছে গোটা শনবিল এলাকা৷

ঘটনাটি ঘটে রবিবার সকালে৷ করিমগঞ্জ থেকে শনবিল আসেন রামকৃষ্ণ মিশনের দিব্যেন্দু (রামভদ্রানন্দজি) মহারাজ৷ সঙ্গে ছিলেন মিশনের স্বেচ্ছাসেবক ও রামকৃষ্ণনগর রামকৃষ্ণ সেবাশ্রম সংঘের কর্মকর্তারাও৷

শনবিলে সুভাষ হাইস্কুলে ত্রাণ দিতে গেলে গৌরীশ চক্রবর্তী বাদল দাস — নামের ২ ব্যক্তি সেখানে হাজির হয়৷ জানতে চায়, ঠিক কতজনকে ত্রাণ দেওয়া হচ্ছে৷ মিশনের কর্মকর্তারা জানান, যারা নাম তালিকাভুক্ত করেছিল, ত্রাণ দেওয়া হবে তাদেরই৷ গৌরীশরা বলতে থাকে, এত কম প্যাকেট কেন?এত কম ত্রাণ দিয়ে কী হবে? একসময় তারা উচ্চস্বরে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে মিশনের স্বেচ্ছাসেবকদের সঙ্গে৷ অভিযোগ তুলে, সঠিক মানুষকে নাকি ত্রাণ দেওয়া হচ্ছে না৷

মহারাজ স্বয়ং এদের বোঝানোর চেষ্টা করেন, কদিন আগে যাদের নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল, তাদেরই এবার দেওয়া হবে৷ পরে যদি প্রয়োজন পড়ে, তবে গ্রহণ করা হবে অন্য ব্যবস্থা৷ কিন্তু বার বার বোঝানোর পরও গৌরীশরা থামতে চায়নি বলে অভিযোগ৷ অভিযোগ যে, এরা দু’জন নাকি শনবিলে সুভাষ হাইস্কুলের লোহার গেট বন্ধ করে দেয়৷ যাতে ত্রাণ সামগ্রীর ৩টি গাড়ি ও মহারাজ যাতে বেরিয়ে যেতে না পারেন৷

মহারাজ তখন ফোন করেন করিমগঞ্জের SP পদ্মনাভ বড়ুয়াকে৷ এ সময় উপস্থিত হন অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক অনিলচন্দ্র দাস৷ তিনি অভিযুক্তদের ওপর পাল্টা আওয়াজ তুলে মহারাজদের শিবির থেকে বেরিয়ে আসতে সহযোগিতা করেন৷

সন্ধ্যায় শনবিল পুলিশ ২ অভিযুক্তকে আটক করেছে৷ খবরটি শোনা মাত্র রাতাবাড়ির বিধায়ক বিজয় মালাকার দুঃখ প্রকাশ করেন৷ বলেন, ‘আমি এ ঘটনায় লজ্জিত, মর্মাহত৷ কেন্দ্রের বিধায়ক হিসাবে গোটা ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি ৷ দুঃখ প্রকাশ করেন ভৈরবনগর জেলা পরিষদের প্রাক্তন সদস্য অখিল রঞ্জন তালুকদারও৷

Latest Updates

RELATED UPDATES